এক সপ্তাহের ডায়েটে হতে পারে হৃদযন্ত্রের ক্ষতি

Feb 04, 2018 03:44 pm

এক সপ্তাহের ডায়েটে হতে পারে হৃদযন্ত্রের ক্ষতি

মাত্র এক সপ্তাহ সময় ধরেও যদি ক্র্যাশ ডায়েট করা হয়, এতে হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি হতে পারে। সম্প্রতি করা এক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, অতিরিক্ত ওজনের যেসব মানুষ ডায়েট করতে গিয়ে হুট করেই ক্যালরি গ্রহণের মাত্রা দৈনিক ৬০০-৮০০ ক্যালরিতে নামিয়ে আনেন, তাদের হৃৎপিণ্ডের আশেপাশে ৪৪ শতাংশ বেশি চর্বি জমা হতে দেখা যায়।

২ ফেব্রুয়ারি, শনিবার স্পেনের বার্সেলোনায় ইউরোপিয়ান সোসাইটি অফ কার্ডিওলজির এক সম্মেলনে এ গবেষণার তথ্য প্রকাশ করা হয় বলে জানিয়েছে গণমাধ্যম ডেইলি মেইল।

ক্র্যাশ ডায়েট হলো খুব কম সময়ে দ্রুত ওজন কমিয়ে আনার খাদ্যভ্যাস। এই ধরনের ডায়েটের ফলে যদিও মাত্র এক সপ্তাহে শরীর থেকে ছয় শতাংশ চর্বি কমিয়ে আনা সম্ভব হয়, কিন্তু এই কমে যাওয়া ফ্যাট রক্তস্রোতের মাধ্যমে হৃৎপিণ্ডে জমা হতে দেখা যায়।

গবেষণায় বলা হয়েছে, আট সপ্তাহ ধরে ডায়েট বজায় রাখলে যদিও হৃৎপিণ্ডে জমা এই চর্বি কমে আসে, যাদের আগে থেকেই হৃদরোগের সমস্যা আছে তাদের নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হতে পারে এবং হৃদস্পন্দন অনিয়মিত হতে পারে।

গবেষণার লেখক, ইউনিভার্সিটি অফ অক্সফোর্ডের ড. জেনিফার রেইনার বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ে সুস্থ ব্যক্তিরা হৃদযন্ত্রের এই পরিবর্তন শনাক্ত নাও করতে পারেন। কিন্তু যাদের হৃদরোগ আছে তাদের সতর্ক থাকা উচিত।’

ড. রেইনারের মতে, ডায়েট করতে হবে ডাক্তারের পরামর্শ মেনে।

‘বিগত কয়েক বছর ধরে ‘ফ্যাশনেবল’ হয়ে উঠেছে এসব ক্র্যাশ ডায়েট’, তিনি বলেন। কারও হৃদরোগ থাকলে ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে তারপরেই লো-ক্যালরি ডায়েট শুরু করা উচিত।’

তবে ক্র্যাশ ডায়েটের ব্যাপারে কিছু সুসংবাদও পাওয়া গেছে এই গবেষণায়। দেখা গেছে, এক সপ্তাহ ক্র্যাশ ডায়েটের ফলে পেটের মেদ কমে ১১ শতাংশ। এর পাশাপাশি যকৃতের মেদ কমেছে ৪২ শতাংশ। রক্তচাপ ও কোলেস্টেরলও কমেছে। ইনসুলিন রেজিস্টেন্স কমার ফলে টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও কমে।

গবেষকেরা ২১ জন অতিরিক্ত ওজনের স্বেচ্ছাসেবী বেছে নেন যাদের গড় বয়স ছিল ৫২ এবং বিএমআই (উচ্চতার সাথে ওজনের অনুপাত) ছিল প্রতি বর্গ মিটারে ৩৭ কেজি।

তারা আট সপ্তাহের জন্য দৈনিক খুবই কম ক্যালরির একটি ডায়েট অনুসরণ করেন। গবেষণার শুরুতে, এক সপ্তাহ পর ও একেবারে শেষে তাদের শরীরের এমআরআই স্ক্যান করা হয়।

সূত্র: ডেইলি মেইল